< বিজেপির জমিদারির অবসান ঘটাব আমরাই

বিজেপির জমিদারির অবসান ঘটাব আমরাই

বাংলায় হেরে গিয়েছে বলে বাংলার মানুষের টাকা আটকে রেখেছে বিজেপির সরকার। কিন্তু কেউ বঞ্চিত হবেন না। বাংলার মা-মাটি মানুষের সরকারই আপনাকে প্রাপ্য টাকা দেবে। মুখ্যমন্ত্রী স্বনির্ভর বাংলা গড়ার কথা বলেছেন। মানুষকে অধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার কথা বলেছেন। সেই কথা তুলে ধরে সোমবার চড়িয়াল থেকে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjee) বলেন, মানুষের অধিকারকে সামনে রেখে আগামী নির্বাচন হবে। কারও ক্ষমতা নেই অধিকার থেকে মানুষকে বঞ্চিত করার। এটাই গণতন্ত্রের রীতিনীতি। এটাই ঐতিহ্য। কেন্দ্রের জমিদারির অবসান ঘটাব আমরাই।

ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjee) এদিন চড়িয়াল সেতুর উদ্বোধন করেন। ৫৭ বছর ধরে বিরোধীদের সাংসদ-বিধায়করা যে সমস্যার সুরাহা করতে পারেননি, সেই অসাধ্যসাধন করেছেন তিনি। কথা দিয়েছিলেন পাঁচ বছরের মধ্যে করে দেখাব, সেই কথা রেখেছেন অভিষেক। আবার ৬ দিন পরে তিনি আসবেন। মহেশতলায় জলপ্রকল্প ও উড়ালপুলের নিচের রাস্তা উদ্বোধন করবেন। এর আগে ডায়মন্ড হারবারকে মডেল করে তিনি ৭০ হাজার বয়স্ক মানুষকে ভাতা দিয়েছিলেন। তারপর চা চালু হয়েছিল রাজ্যে। এদিন চড়িয়ালবাসীর দাবি পূরণ করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, নবজোয়ার কর্মসূচিতে আমি দেখেছিলাম মানুষের আর্তনাদ। একশো দিনের টাকা ২ বছর ধরে বাংলার গরিব শ্রমিকরা পাননি। দিল্লিতে বারবার দরবার করে, ধরনা চালিয়েও টনক নড়েনি কেন্দ্রের। তারপরই যুগান্তকারী ঘোষণায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দেন, কেন্দ্রের উপর আমরা আর নির্ভর করব না। আমরা আর দরবার করব না কেন্দ্রের কাছে। একশো দিনের শ্রমিকদের টাকা দেবে রাজ্য সরকারই। সেইজন্য আমরা সহায়তা শিবির করে মানুষের সহায়তায় এগিয়ে এসেছি। এ মাসের মধ্যেই বঞ্চিতরা টাকা পাবেন।

তিনি বলেন, একটা নির্দিষ্ট দল জেতেনি বলে বাংলার টাকা আটকে রাখবে, তা কখনওই সহ্য করা যায় না। আমরা মানুষের পাশে আছি। আর মা-মাটি-মানুষের সরকারেই আস্থা আছে বাংলার। তার কারণ আমরা উন্নয়নের পক্ষে। এরপরই তিনি গত ১০ বছরে ডায়মন্ড হারবারে উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরেন। তিনি বলেন, গত ১০ বছরে ৫ হাজার ৫০০ কোটি টাকার কাজ আমরা করেছি। ১২ মাসের হিসেবে তা ৫৫৮ কোটি টাকার কাজ। প্রতিদিনের হিসেবে ১ কোটি ৫৫ লক্ষ টাকার কাজ। এই কাজ ভারতবর্ষে যদি কেউ করে দেখাতে পারে, রাজনীতির আঙিনায় পা রাখব না। আমি আবেদন করব, চোখে দেখে ভোট দিন, কানে শুনে নয়। তৃণমূলের সরকার যতদিন আছে, কোনও দিন কেউ আপনাদের বঞ্চিত করতে পারবেন না।
অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের আরও সংযোজন, আধার-প্যান কার্ডের লিঙ্কের নাম করে কেন্দ্র হাজার টাকা করে নিয়ে চলে যাচ্ছে। আর আমাদের সরকার ১০০০ টাকা করে দিচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিচ্ছেন আর প্রধানমন্ত্রী নিচ্ছেন। তাহলে আপনারা কার পক্ষে থাকবেন? আপনারাই স্থির করুন। এরপরই চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে তিনি জানিয়ে দেন, মানুষ সঙ্ঘবদ্ধ থাকলে কেন্দ্রের জমিদারির অবসান ঘটাবই। তাঁর সাফ কথা, রোজ সিবিআই রেড করুক, কিন্তু মানুষের টাকা আটকে রাখা চলবে না। মানুষের টাকা ছাড়তেই হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *